• আজঃ মঙ্গলবার, ১২ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৭শে জুলাই, ২০২১ ইং

নোয়াখলীতে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে নির্যাতন, চিকিৎসকের বিরুদ্ধে স্ত্রীর মামলা

নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ


যৌতুক ও নারী নির্যাতন দমন আইনে নোয়াখালী মেডিকেল কলেজের চিকিৎসক আলা উদ্দিনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছে তার স্ত্রী সনোলজিস্ট ডা. আছমাতুননেছা। গতকাল নোয়াখালী সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৩নং আমলি আদালতে মামলাটি করেন তিনি। স্বামী শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ ও নোয়াখালী আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজের সহযোগী অধ্যাপক ডা. আলা উদ্দিন ও ভাশুর সাইদুর রহমানের বিরুদ্ধে ৫০ লাখ টাকার যৌতুক ও নির্যাতনের অভিযোগ তোলেন তিনি।

আছমাতুননেছা আদালতকে জানান, তার স্বামী ডা. আলা উদ্দিন চৌমুহনী শহরে প্রাইভেট হাসপাতাল করতে চায়। যার জন্য ১ কোটি টাকা প্রয়োজন। এর অর্ধেক ৫০ লাখ টাকা যৌতুক হিসাবে ৩ মাসের মধ্যে দিতে তাকে চাপ দেয় তার স্বামী। একপর্যায়ে তার স্বামীর ভাই সাইদুর রহমান টাকা না দিলে সংসার করা যাবে না বলে হুমকি দেয় তাকে। টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় ২ সন্তানসহ তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়া হয়।

এই মামলায় পুত্র নোয়াখালী জেলা স্কুলের নবম শ্রেণীর মেধাবী ছাত্র তৌফিক-ই-এলাহী ও কন্যা তানিশা জাহান বাবার বিরুদ্ধে সাক্ষী হয়েছে। ডাক্তার আছমাতুননেছা আদালতকে আরো জানায়, আমার বিনা অনুমতিতে ডাক্তার সৈয়দা লুলু মারজাহানকে বিয়ে করেছে। ১২ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে তাকেও শারীরিক নির্যাতন করে আলা উদ্দিন। ওই ঘটনায়ও ডাক্তার সৈয়দা লুলু মারজাহান বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ডাক্তার আলা উদ্দিনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। এদিকে আছমাতুননেছা বেগমগঞ্জ মডেল থানা পুলিশকে লিখিতভাবে জানিয়েছেন, মামলা প্রত্যাহার না করলে ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে তাকে নানাভাবে হুমকি দিচ্ছেন তার স্বামী ডা. আলা উদ্দিন।
ভুক্তভোগীর আইনজীবী এডভোকেট আসমা জানায়, আদালত ডা. আলাউদ্দিনের বিরুদ্ধে সমন জারি করলে তিনি আদালতের আদেশকে আমলে নিচ্ছেন না।