• আজঃ শনিবার, ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ডায়াবেটিস সেবায় পার্থক্য আনতে পারেন নার্সরা- রাকিব হাসান

নার্সিং প্রফেশন নিয়ে চলুন আরেকবার গর্ব করা যাক।
আন্তর্জাতিক ডায়াবেটিস ফেডারেশন(IDF) এর এবারের প্রতিপাদ্য “The Nurse and Diabetes”
এবং বাংলাদেশে এবারের প্রতিপাদ্য ” ডায়াবেটিস সেবায় পার্থক্য আনতে পারেন নার্সরাই” ।রক্তে আরেকবার আগুন ধরান,আরেকবার মূলমন্ত্রে উজ্জীবিত হোন।

আর ছোট্ট করে ডায়বেটিস সম্বন্ধে একটু জানিয়ে দেইঃ
ডায়াবেটিস বাংলাদেশের পেক্ষাপটে এক প্রকার বহুল পরিচিত সাস্থ্য সমস্যা,বর্তমান যার রোগীর সংখ্যা ক্রমাগত বেড়েই চলেছে।

ডায়াবেটিস কি?
যখন দেহে ইনসুলিন তৈরি হয় না বা পর্যাপ্ত তৈরি হয়না এই অবস্থাই হচ্ছে ডায়াবেটিস। ডায়াবেটিস সম্বন্ধে বুঝতে হলে আমাদের জানতে হবে ইনসুলিন এবং গ্লুকোজ সম্পর্কে।

গ্লুকোজ কি?
ভাত, আলু, মিষ্টি আলু ও রুটির মত শর্করাযুক্ত খাবার, চিনি ও অন্যান্য মিষ্টি খাবার হজম হয়ে তা থেকে গ্লুকোজ উৎপন্ন হয়।এই গ্লুকোজ আমাদের দেহে জ্বালানী বা শক্তি হিসেবে কাজ করে।


আর ইনসুলিন কি?
এটি হল অগ্ন্যাশয়ের দ্বারা উৎপাদিত একটি হরমোন, যা গ্লুকোজকে কোষে প্রবেশ করতে সাহায্য করে।

ডায়বেটিস এর প্রকারঃ
টাইপ 1ঃ যখন দেহ ইনসুলিন উৎপাদনে একেবারে অক্ষম হয়।
টাইপ2ঃ যখন দেহ ইনসুলিন আংশিক উৎপাদন করতে পারে কিন্ত তা পযাপ্ত নয়।
এই দুইটির ফলেই গ্লুকোজ কোষে প্রবেশ করতে না পেরে রক্তে জমা হতে থাকে।

চিকিৎসাঃ
3D – Diet,Drug,Discipline। উপযুক্ত খাবার,ওষুধ,সঠিক জীবন ব্যবস্থা+ব্যয়াম ! এই তিন মূলমন্ত্রে ডায়াবেটিস কে নিয়ন্ত্রণ এ রাখা যায়। আর বড় করবো না,কারন বড় লেখা সত্তিই একটু বিরক্তিই লাগে।

রাকিব হাসান।
২য় বর্ষ।
সিআরপি নার্সিং কলেজ।