লোড বন্ধ করুন
  • আজঃ মঙ্গলবার, ৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২২ ইং

এএসপি আনিসুল হত‌্যার দ্রুত বিচার দাবি

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) আনিসুল করিম শিপনের হত্যাকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবি জানিয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের অ‌্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন।

শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবে সামনের আয়োজিত মানববন্ধন থেকে এ দাবি জানানো হয়। মানববন্ধনে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মেহেদী জামেল, সাবেক সভাপতি সোহেল পারভেজ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুর হোসেন সৈকত, শাহাদাত হোসেন, স্বপ্ন  বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা বলেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন মেধাবী ছাত্রকে নির্মমভাবে তারা হত্যা করেছে। তারা এই হত্যার মাধ্যমে একটি রাষ্ট্রীয় সম্পদ নষ্ট করেছে। অসুস্থতার কারণে ‘মাইন্ড এইড’ হাসপাতালের ভর্তির দুই মিনিটের মাথায় তারা নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করে। আমরা এই হত্যাকাণ্ডের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। যে হাসপাতালে তার চিকিৎসা হয়েছে সেটাকে মানসিক হাসপাতাল বলা যায় না। এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের ফাঁসি চাই।’ নিহত এএসপি আনিসুল করিম শিপনের পরিবারের দিকে নজর রাখার আহ্বান জানান তারা। তার মেয়ের পড়াশোনা খরচ যেন সরকার বহন করে সেই অনুরোধও করেন বক্তারা।

উল্লেখ‌্য, গত ৯ নভেম্বর দুপুরে আনিসুলকে মাইন্ড এইড হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে ভর্তির কিছুক্ষণ পরই কর্মচারীরা তাকে পিটিয়ে হত‌্যা করে বলে অভিযোগ করে পরিবার। এ ঘটনায় নিহতের বাবা মুক্তিযোদ্ধা মো. ফাইজুদ্দীন আহম্মেদ বাদী হয়ে আদাবর থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলাটিতে এখন পর্যন্ত ১২ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ রসায়ন ও অণুপ্রাণবিজ্ঞান বিভাগের ৩৩ ব্যাচের ছাত্র আনিসুল করিম ৩১তম বিসিএসে পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পান। তার বাড়ি গাজীপুরে। সর্বশেষ তিনি বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের সহকারী কমিশনারের দায়িত্বে ছিলেন।