• আজঃ রবিবার, ১৯শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩রা জুলাই, ২০২২ ইং

পরিবেশবান্ধব জ্বালানির ব্যবহার বাড়াতে প্রণোদনা অব্যাহত রাখা হবে : বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, পরিবেশবান্ধব নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বাড়াতে প্রণোদনা অব্যাহত রাখা হবে। নবায়নযোগ্য জ্বালানি ভিত্তিক ডিস্ট্রিবিউটেড জেনারেশনকে উৎসাহিতকরণের লক্ষ্যে নেট মিটারিং ব্যবস্থা প্রবর্তন করা হয়েছে। টি.আর/কাবিখার মাধ্যমে সোলার হোম সিস্টেম প্রসারে সহযোগিতা করা হচ্ছে।

প্রতিমন্ত্রী মঙ্গলবার এক ভিডিও কনফারেন্সিং-এর মাধ্যমে  দেশের বিভিন্ন স্থানে মোট ৫০০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন নবায়নযোগ্য জ্বালানি ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশ-চায়না পাওয়ার কোম্পানী (প্রাঃ) লিমিটেড (রিনিউএ্যাবল) নামক একটি জয়েন্ট ভেঞ্চার কোম্পানী গঠনের লক্ষ্যে নর্থ ওয়েষ্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানী লিঃ (এনডব্লিউপিজিসিএল) এবং চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমপোর্ট এন্ড এক্সপোর্ট কর্পোরেশন (সিএমসি) এর মধ্যে জয়েন্ট ভেঞ্চার এগ্রিমেন্ট (জেভিএ) স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, অ-কৃষি জমির অপ্রতুলতার জন্য সৌর শক্তি ব্যবহার করে বড় আকারের বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র স্থাপন করা যাচ্ছে না। ছাদ সৌর বিদ্যুৎ এবং ভাসমান সৌর বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। বর্জ্য হতে বিদ্যুৎ ও বায়ু হতে বিদ্যুৎ উৎপাদন নিয়েও গৃহীত উদ্যোগসমূহ এগিয়ে চলছে।

২৩ প্রকল্পের আওতায় ১২২০.৭৭ মেগাওয়াট নবায়নযোগ্য জ্বালানি হতে বিদ্যুৎ উৎপাদনের কাজ চলমান। নানা উৎস হতে নবায়নযোগ্য জ্বালানির মাধ্যমে বিদ্যুৎ উৎপাদনে বিনিয়োগের ক্ষেত্রও প্রসারিত হয়েছে।

সরকারি মালিকানাধীন নর্থ-ওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি লিমিটেড (নওপাজেকো) এবং চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমপোর্ট এন্ড এক্সপোর্ট কর্পোরেশন (সিএমসি)-এর যৌথ উদ্যোগে ‘বাংলাদেশ-চায়না পাওয়ার কোম্পানি (প্রাইভেট) লিমিটেড (রিনিউবল)’ শিরোনামে জয়েন্ট ভেঞ্চার কোম্পানি গঠনের লক্ষ্যে গত ২৭ আগস্ট একটি চুক্তি (এমওইউ) স্বাক্ষর করে এবং গত ৮ জুন এই জয়েন্ট ভেঞ্চার কোম্পানি গঠনের প্রস্তাব মন্ত্রিসভা বৈঠকে অনুমোদিত হয়। যেখানে উভয়ের ৫০% করে শেয়ার রয়েছে।কোম্পানির অনুমোদিত মূলধন ১ হাজার কোটি টাকা । কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ১৬ কোটি টাকা।

বিদ্যুৎ সচিব ড. সুলতান আহমেদের সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল এই অনুষ্ঠানে অন্যন্যের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস, বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং, বিপিডিবি চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মোঃ বেলায়েত হোসেন, এনডব্লিওপিজিসিএল এর চীফ এক্সিকিউটিভ অফিসার প্রকৌশলী এ. এম. খোরশেদুল আলম এবং সিএমসি চেয়ারম্যান রুয়ান গুয়াং  বক্তব্য রাখেন।

দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।