• আজঃ সোমবার, ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ই আগস্ট, ২০২২ ইং

মহামারি করোনাকালে শেষ্ঠ মানবিকতার নাম পুলিশ বাহিনী, এসপি শহিদুল্লাহ

সারোয়ার হোসেন,রাজশাহী প্রতিনিধি :


মহামারি করোনাকালে শেষ্ঠ মানবিক মানবতার ফেরিওলার আরেক নাম বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী। চারিদিকে যখন করোনার মহামারি ছড়াছড়ি ও মৃত্যুর মিছিল তখন সাধারণ মানুষের কাছে একমাত্র ভরশা পুলিশ বাহিনী। আজ পুলিশ বাহিনী ছিল বলেই করোনায় মৃত্যু বরণ কারিকে সহিছালামতে লাশ দাফন করতে পারছে পরিবার পরিজনরা।

তা না হলে মৃত ব্যক্তির লাশ দাফন করার কেউ ছিলোনা। অথচ নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাহসী কতার সাথে করোনায় মৃত ব্যক্তিদের লাশ দাফন করেছে পুলিশ বাহিনী। এছাড়াও পুলিশ বাহিনী যে মানুষের কল্যাণে কাজ করে তা আবারো প্রমাণ করলেন এই মহামারি করোনা ভাইরাস দুঃসময়ে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী।

জানা গেছে, মহামারি করোনা ভাইরাস দুঃসময় থেকে রাজশাহী বাসীর পাশে মানবতার দূত ফেরিওয়ালা হয়ে সেবা দিতে দিনের পর দিন রাতের পর রাত জনসাধারণের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ত্রাণ ও খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন রাজশাহীর এসপি শহিদুল্লাহ(বিপিএম)। এমনকি এসপি শহিদুল্লাহর নির্দেশে রাজশাহী জেলার প্রতিটি থানার ওসি কে প্রতিদিন করোনা যুদ্ধে মাঠে থেকে জনসাধারণের মাঝে খোঁজ খবর নিতে তৎপর থেকে অসহায় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মানুষের পাশে কাজ করার জন্য আহ্বান জানান এসপি শহিদুল্লাহ(বিপিএম)।

এতে করে পুলিশের করোনা দুঃসময়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মাঠে ঘাটে সবসময় নিয়জিত থাকায় ফের পুলিশ বাহিনীর প্রতি শ্রদ্ধাশীল ও আস্থা ভরশা দেখা দিয়েছে জনসাধারণের মধ্যে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, এসপি শহিদুল্লাহর দিকনির্দেশনায় তানোর থানার পক্ষ থেকে করোনা ভাইরাস সংক্রামিত হওয়ার পর থেকে দিনরাত আক্রন্ত ব্যক্তিদের নিরাপদে রাখা সহ উপজেলাতে যেন ছড়িয়ে না পড়ে সেজন্য উপজেলার বিভিন্ন পাড়া-মহল্লার মোড়ে ও ঈদকে ঘিরে যেন এক থানা থেকে আরেক থানায় আত্নীয় সজন ব্যাড়াতে আসতে না পারে সেজন্যেও দেয়া হচ্ছে কড়া নজরদারি। শুধু তাই না ঈদকে ঘিরে গ্রামের কেউ যেন কারো বাসায় কোনো ধরনের অনুষ্ঠান বা ঈদপূর্ণ মিলনের নামে মিটিং সমাবেশ পর্যন্ত না করার অনুরোধ জানিয়ে আসছেন তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি রাকিবুল হাসান রাকিব।

তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি রাকিবুল হাসান রাকিব বলেন, তানোরে মহামারী করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ছোবল পড়ায় আতংকিত হয়ে পড়েছে সবশ্রেণীপেশার মানুষ। আর সেই আতংক জনসাধারণের মধ্যে থেকে দূর করতে করোনা ভাইরাস সংক্রমিত ব্যক্তিদের নিরাপদ হোমকোন্টাইনে রেখে তাদের চিকিৎসা সেবা দেয়া ছাড়াও নিয়মিত তাদের খোঁজ খবর নিচ্ছেন এসপি শহিদুল্লাহ (বিপিএম) মহাদ্বয়।

এছাড়াও প্রতিদিন এসপি মহাদ্বয়ের নির্দেশে তানোর থানার পক্ষ থেকে রাত-দিন উপজেলার বিভিন্ন পাড়া-মহল্লার মোড়ে জরুরী ফোর্স দিয়ে জনসমাগম কমাতে সচেতনতা মূলক প্রচার মাইকিং করা হচ্ছে ও মহামারি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দেয়া দিকনির্দেশনাকে বাস্তবায়ন করতে এসপি স্যারের নির্দেশে প্রতিনিয়ত জনসচেতনতা মূলক মাইকিং লিফলেট বিতরণ প্রচার প্রচারণা নিয়মিত থানার পক্ষ থেকে অব্যাহত রয়েছে বলে জানান তিনি।

রাজশাহী জেলা পুলিশের এসপি শহিদুল্লাহ(বিপিএম) জানান, করোনায় আক্রান্ত কোন রোগী যখন নিজেদের পরিবার ও সমাজের মানুষের কাছে অবহেলিত তখন পুলিশই তাদের জীবন বাজি রেখে করোনা ভাইরাস আক্রন্তদের হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করছেন। এমনকি করোনা আক্রান্ত কোন রোগী মারা গেলে পুলিশকেই তার জানাজার ব্যাবস্থা করা এমনকি দাফনের ব্যবস্থাও করছেন পুলিশ সদস্যরা।

এ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে করোনা যুদ্ধে পুলিশের অনেক সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং মরেও গেছেন। তবুও পুলিশ সদস্যরা ঝুকি নিয়েই চালিয়ে যাচ্ছে কর্মকাণ্ড। সেই সাথে আমাদের জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে অসহায় দুস্থদের মাঝে ত্রাণ ও খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। প্রতিটি এলাকায় জনসচেতনতা মূলক মাইকিং করে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচলের নির্দেশনার পাশাপাশি তাদেরকে স্বাস্থ্য বিধি অনুযায়ী পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন মহামারী করোনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে সরকারী নিয়মনীতি মেনে সবাইকে ঘরে থেকে নিরাপদ থাকতে অনুরোধ জানিয়ে যাচ্ছেন রাজশাহীর মানবিক এসপি শহিদুল্লাহ(বিপিএম)।

দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।