• আজঃ শনিবার, ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১লা অক্টোবর, ২০২২ ইং

সারা দেশে আর ও পাঁচ হাজার শেখ রাসেল কম্পিউটার ল্যাব স্থাপনের পরিকল্পনা আছেঃ পলক

মোঃ বেলায়েত হোসেন নাটোর জেলা প্রতিনিধিঃ


সারা দেশে এ পর্যন্ত ৮ হাজার শেখ রাসেল কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে, এ বছর আর ও ৫হাজার শেখ রাসেল কম্পিউটার ল্যাব স্থাপনের পরিকল্পনা আছে বললেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, চতুর্থ শিল্পবিপ্লব বাস্তবায়নে সারাদেশে আট হাজার ‘শেখ রাসেল ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব’ স্থাপন করা হয়েছে।

এ বছরের মধ্যে আরও ৫ হাজার শেখ রাসেল ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব স্থাপন করার জন্য প্রকল্প হাতে নেয়া নিয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ। আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই), রোবটিকস, ব্লকচেইন, বিগ ডাটার মতো নতুন নতুন প্রযুক্তি পৃথিবীকে দ্রুত বদলে দিচ্ছে। তরুণ প্রজন্মকে প্রোগ্রামিং শেখার কোন বিকল্প নেই। এ বিষয়ে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল বাংলা ভাষায় প্রোগ্রামিং শিক্ষা কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে।

বর্তমানে অনলাইন প্লাটফর্ম ই-শিক্ষা ডট নেট এ শিক্ষা দেয়া হচ্ছে। প্রোগ্রামিং হবে ভবিষ্যতের ভাষা। কেননা এটি যন্ত্রের সঙ্গে মানুষ এমনকি যন্ত্রের সঙ্গে যন্ত্রের যোগাযোগের মাধ্যম। বিগডাটার মতো প্রযুক্তি আয়ত্ত করতে গেলে প্রোগ্রামিংয়ের কোন বিকল্প নেই। প্রোগ্রামিং নিয়ে প্রতিমন্ত্রী পলক আরও বলেন, প্রোগ্রামিংয়ের জন্য ভাষা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এই ভাষা শেখার বিষয়টি আগে আয়ত্ত করতে হবে।

বিশেষ করে অঙ্ক, ইংরেজী ও বিজ্ঞানের পাশাপাশি প্রোগ্রামিং ভাষা জানতে হবে। তরুণ প্রজন্মের জন্য সম্ভাবনা ময় পৃথিবীতে প্রোগ্রামারদের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ভবিষ্যতে তারাই বিশ্বকে নেতৃত্ব দেবে। স্কুল পর্যায়ে ভাল প্রোগ্রামার তৈরি করার জন্য চলমান ‘শেখ রাসেল ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব’ প্রকল্পে আরও সাড়ে ৫ হাজার ল্যাব স্থাপন করা হবে। যাতে স্কুল থেকেই তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ে পারদর্শী হয়ে বেরিয়ে আসতে পারে।

করোনা মহামারীতে প্রকল্পের কাজ প্রথম দিকে হোঁচট খেলেও এখন অনলাইনে প্রোগ্রামার তৈরি করা হচ্ছে। যাতে প্রোগ্রামারদের কোন ক্ষতির সম্মুখীন হতে না হয়। আমরা ফ্রিল্যান্সার তৈরি করতে বেশ কয়েকটি কোর্স চালু করেছি। এর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কোর্স হচ্ছে প্রোগ্রামিং। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা জনাব সজীব ওয়াজেদ জয় ভাইয়ের নিদের্শনায় আমরা ষষ্ঠ শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত কম্পিউটার শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে পেরেছি।

শৈশব ও কৈশোর থেকেই যেন শিক্ষার্থীরা গ্রোগ্রামিং জানতে পারে এ জন্য ইতোমধ্যেই আট হাজার শেখ রাসেল ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব গড়ে তোলা সম্ভব হয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ বির্নিমানে সার্বিক ভাবে সরকার অর্থ বরাদ্ধো দিয়ে যাচ্ছেন। উন্নয়ন মুলক কাজ দেশ এবং করেনা থেকে সামাজিক দুরত্বে বজায় থেকে মাক্স,স্যানিজার, ব্যাবহার বাধ্যমৃলক করা দরকার।

দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।