• আজঃ রবিবার, ১৯শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩রা জুলাই, ২০২২ ইং

এমপি ফারুকের বিরুদ্ধে অন্ধকারে ঢিল ছুড়ছে কে?

সারোয়ার হোসেন,রাজশাহী প্রতিনিধি :


রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সাংসদ, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সফল সভাপতি ও (সাবেক) শিল্প প্রতিমন্ত্রী ওমর ফারুক চৌধূরীর সুনাম ও ব্যক্তি ইমেজ নষ্ট করে তাকে দলের হাইকমান্ডের কাছে ফাঁসাতে গভীর চক্রান্তে লিপ্ত হয়ে অন্ধকারে ঢিল ছুড়ছে

সেভেন স্টার নামে উপাধী পাওয়া সম্ভাব্য ৭ জন এমপি প্রার্থী বলে জনসাধারণের মধ্যে গুঞ্জন উঠেছে। এতে করে সেভেন স্টারকে ঘিরে এলাকাবাসীর মধ্যে দেখা দিয়েছে চাঞ্চল্য ও বাজার ঘাটে চায়ের দোকানে মানুষের মুখে মুখে বইছে সমালোচনার ঝড়। আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ৭জন সেভেন স্টার (আক্যমা) বগি নেতা নিজেদের সম্ভাব্য এমপি প্রার্থী বলে ঘোষনা দিয়েছে।

এসব ছাড়াও সম্ভাব্য ৭জন সেভেন স্টার (আক্যমা) বগি নেতারা সবাই একত্রিত হয়ে নির্বাচনী এলাকায় বিভিন্ন সভা, সমাবেশে এমপি ফারুকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন রোকমের মিথ্যা বক্তব্য ও মন্তব্য করছে এবং গভীর চক্রান্ত করে আওয়ামী লীগে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি করতে মরিয়া হয়ে পরিকল্পনা চালাচ্ছে।

জানা গেছে, তানোর-গোদাগাড়ীতে আওয়ামী লীগের একশ্রেণীর বগি (মতলববাজ) কিছু নেতাদের সমস্বয়ে গড়ে তোলা হয়েছে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট বাহিনী । সিন্ডিকেটের মূল পরিকল্পনা ও উদ্দেশ্যে নির্বাচন করা নয় নির্বাচনে প্রার্থী হবার আওয়াজ তুলে এমপির কাছে থেকে (নগদ-নারায়ন) সহ কিছু অবৈধ সুবিধা আদায় করার পরিকল্পনা। আর এই সিন্ডিকেট চক্রটি পরিকল্পনা ও কৌশল নিয়ে শক্তভাবে মাঠে নেমেছে এবং পরিকল্পনার বাস্তবায়ন ঘটাতে ইতিমধ্যে সিন্ডিকেট সদস্যরা নিজ নিজ এলাকায় এমপির বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও বিষাদাগারের মাধ্যমে এমপির ওপর চাপ সৃষ্টি করে অবৈধ সুবিধা আদায় করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।

এদিকে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের পরিকল্পনা ফাঁস হয়ে পড়লে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে দেখা দিয়েছে চাঁপাক্ষোভ ও উত্তেজনা। সংশ্লিষ্ট তানোর-গোদাগাড়ী আসনে আওয়ামী লীগের সম্ভবনাময় গোছানো মাঠ নষ্ট এবং দলীয় (সাংসদ) এমপির বিরুদ্ধে একশ্রেণীর বগি (মতলববাজ) নেতার অপপ্রচার ও বিষাদাগার করাকে কেন্দ্র করে তৃণমূলে এই ক্ষোভ-অসন্তোষের সূত্রপাত হয়েছে বলে দলীয় সূত্র নিশ্চিত করেছে।

আওয়ামী লীগের এসব বগি সেভেন স্টার নেতাদের এসব কান্ড দেখে জেলা আ’লীগের সদস্য শরিফ খান বলেন, নিজের স্বার্থ হাসিল করতে এরা ফারুক চৌধূরীর বিরুদ্ধে ভুলভাল বগি আওয়াজ দিয়ে আ’লীগের গুছানো মাট নষ্ট করে নেতাকর্মীদের মধ্যে দ্বন্দ্ব-বিবাদ প্রকট সৃষ্টি করতে পরিকল্পনা করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।

এতে করে তৃনমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের বিরুদ্ধে হাইকমান্ডে বহিস্কার দাবী করে তাদের বিভাগীয় শাস্তির ব্যবস্থা নিতে হাইকমান্ডের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন বলে তিনি জানান।

দুঃখিত! কপি/পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন।