• আজঃ বুধবার, ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

করোনা ইস্যুতে নিউজিল্যান্ডের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ

পুরো বিশ্ব করোনা ঠেকাতে যেখানে হিমশিম খাচ্ছে  সেখানে এর প্রাদুর্ভাব নিজেদের নিয়ন্ত্রণে আনতে অনেকটাই সফল নিউজিল্যান্ড। তবে এর মাঝেও করোনা মোকাবিলায় সরকারের নেওয়া পদক্ষেপ সমালোচিত হয়েছে নিউজিল্যান্ডে। এমন ঘটনার প্রেক্ষিতে ও নিজেই লকডাউন বিধি ভাঙায় পদত্যাগ করেছেন দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডেভিড ক্লার্ক।

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আর্ডার্ন স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগপত্র গ্রহণের কথা নিশ্চিত করেছেন। নিউজিল্যান্ডের লকডাউন অমান্য করে নিজ পরিবারকে নিয়ে সৈকতে বেড়াতে গিয়েছিলেন এই মন্ত্রী।  গত এপ্রিলে লকডাউনের প্রথম সপ্তাহে নিজ বাড়ি থেকে ২০ কিলোমিটার দূরের সৈকতে যান তিনি।

এ বিষয়ে তিনি বলেন,  এভাবে মহামারি মোকাবিলায় সরকারের সঙ্গে পুরোপুরি সহযোগিতা করতে পারছিলাম না। ইউরোপের এই দেশটিতে ১ হাজার ৫২৮ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন এবং মৃত্যু হয়েছে ২২ জনের। তবে গত মাসে দেশকে করোনামুক্ত ঘোষণা করে সকল বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হয়।

তবে সম্প্রতি নতুন করে করোনার সংক্রমণ শুরু হয় দেশটিতে। এছাড়া দুজন নাগরিককে মুমূর্ষু বাবার সঙ্গে দেখা করার অনুমতি দেওয়া হয়। পরবর্তীতে তাদের দুজনই কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হিসেবে সনাক্ত হন।এই ঘটনায় ব্যাপক সমালোচনা ঘটে। ক্লার্ক এ ঘটনাকে উল্লেখ করে বলেন, ‘এ সিদ্ধান্তগুলো নেওয়ার ক্ষেত্রে আমি পুরো দায় নিচ্ছি এবং আমি স্বাস্থ্যমন্ত্রী থাকার সময় তা হয়েছে।’ নিউজিল্যান্ডের কোথাও ‘স্থানীয়’ সংক্রমণ নেই নিশ্চিত করে ক্লার্ক জানান,  এটিই তার সরে যাওয়ার সঠিক সময়।
জানা গেছে, বেশ কয়েকদিন আগেই পদত্যাগপত্র দিয়েছিলেন ক্লার্ক। কিন্তু করোনা সংকটের কারণে তা গ্রহণ করা হয়নি।

তবে এবার ক্লার্কের পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী আর্ডার্ন। প্রধানমন্ত্রী জানান, আমাদের স্বাস্থ্যসেবার নেতৃত্বের উপর নিউজিল্যান্ড জনগণের আস্থা থাকা জরুরি। নতুন স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে বর্তমান শিক্ষামন্ত্রী ক্রিস হিপকিন্স দায়িত্ব নিবেন বলেই জানা গেছে। অন্তত সেপ্টেম্বরের জাতীয় নির্বাচন পর্যন্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে তিনিই থাকবেন এমনটাই জানিয়েছে সংবাদমাধ্যমগুলো।