• আজঃ বুধবার, ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

নড়াইলে অ্যাসিড মামলায় ন্যায় বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

নড়াইল সদর উপজেলার বাহিরগ্রামের মেয়ে তানিয়া বেগমের (২৭) শরীরে অ্যাসিড নিক্ষেপের ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রতিবাদে এবং সঠিক তদন্তের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) দুপুরে নড়াইল শহরের আদালত চত্বরে এ মানববন্ধন অনুুষ্ঠিত হয়।

এ সময় বক্তব্য দেন নড়াইলের কলোড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্বাস হোসেন, সাবেক চেয়ারম্যান আশিষ বিশ্বাস, মুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রবীন্দ্রনাথ অধিকারী, স্বপন মোল্যা, পারভীন খাতুন, আয়শা বেগমসহ ভূক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা।

বক্তারা বলেন, টাকা ধার দেয়াকে কেন্দ্র করে নড়াইলের বাহিরগ্রামের গোলাপ মোল্যার মেয়ে তানিয়া তার নিজের শরীরে অ্যাসিড দিয়ে একই গ্রামের জুয়েল মোল্যাসহ (৪০) প্রতিপক্ষের সাতজনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করেছেন।

ইতোমধ্যে জুয়েলসহ বাহিরগ্রামের বিপ্লব মোল্যা (৫০) ও অহিদুল ইসলামকে (৬২) আটক করেছে পুলিশ। বক্তারা ষড়যন্ত্রমূলক মামলা প্রত্যাহারের দাবি করেন। এছাড়া সঠিক তদন্তপূর্বক এ ঘটনায় জড়িত তানিয়াসহ অন্যদের শাস্তি দাবি করেন।

এদিকে তানিয়ার পরিবারের অভিযোগ, প্রায় এক বছর আগে বাহিরগ্রামের জুয়েল ব্যবসা করার জন্য তানিয়ার কাছ থেকে প্রায় ১৫ লাখ টাকা ধার নেন। তানিয়া তার পাওনা টাকা ফেরত চায়লে জুয়েল নানা টালবাহানা করেন।

বিভিন্ন সময়ে তাকে হুমকিও দেয়। এ ঘটনায় গত ১৭ আগস্ট রাত ৯টার দিকে জুয়েলসহ তার লোকজন তানিয়ার শরীরে অ্যাসিড নিক্ষেপ করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। তানিয়াকে নড়াইল সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার পিঠের কিছু অংশ পুড়ে গেছে।

কলোড়া ইউনিয়নের স্থানীয় মেম্বার আনোয়ার মোল্যা বলেন, জুয়েলের দাবি তানিয়া তার (জুয়েল) কাছে দুই লাখ ৩০ হাজার টাকা পাবেন। আর তানিয়ার দাবি; জুয়েলের কাছে ১৫ লাখ টাকা পাবেন। এ নিয়ে কয়েকবার গ্রাম্য সালিশও হয়েছে। কিন্তু কোনো সুরাহা হয়নি। অ্যাসিড নিক্ষেপের বিষয়টি রহস্য ও সন্দেহজনক।

নড়াইল থানার এসআই শফি উদ্দিন জানান, অ্যাসিড বা কোনো দাহ্য পদার্থে তানিয়ার পিঠ পুড়েছে, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় সাতজনের নামে মামলা হয়েছে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম (বার) জানান, ইতোমধ্যে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। বিষয়টি অধিকতর তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।