• আজঃ মঙ্গলবার, ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

নোয়াখালীতে মাদক বিক্রিতে বাঁধা দেয়ায় দু’গ্রুপে সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ১৫

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে মাদক বিক্রিতে বাঁধা দেয়ায় দু’গ্রপের সংঘর্ষে মহিলাসহ ১৫ জন আহত হয়েছে। আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয়রা সোনাইমুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও নোয়াখালী জেনারেল হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার দিবাগত রাত ৮টার দিকে উপজেলার বজরা গ্রামের খাঁলপাড়ে নওশাদের দোকানের সামনে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, উপজেলার বজরা গ্রামের মানিকের ছেলে টিটু দীর্ঘদিন ধরে মাদক সেবন ও বিক্রি করে আসছিল। সে প্রতিনিয়ত দক্ষিণ বজরা নওশাদের দোকানের সামনে দিয়ে গাঁজা প্রকাশ্যে বিক্রি করে। এই নিয়ে দক্ষিণ বজরা গ্রামের লোকজন কয়েক বার তাকে মাদক বিক্রিতে বাঁধা দেয়। সে বাঁধা উপেক্ষা করে প্রতিদিনের ন্যায় শুক্রবার বিকালে মাদক বিক্রি করতে যায়। একই গ্রামের খোরশেদ আলমের ছেলে আবুল কালাম মাদক বিক্রিতে বাঁধা দিয়ে মাদক বিক্রিতা টিটুর দেহ তল্লাশী করে ৫০ গ্রাম গাঁজা পায়। এই সময় তাঁদের উভয়ের মধ্যে হাতাহাতি হয়। এই নিয়ে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তি শুক্রবার সন্ধ্যায় নওশাদের দোকানে বিষয়টি মিমাংশা করার লক্ষ্যে শালিসে বসে। উক্ত শালিসে মাদক বিক্রেতা ও তাঁর লোকজন উত্তোজিত হয়ে হট্রোগোল সৃষ্টি করে। এক পর্যায় মাদক বিক্রেতা টিটু ও বাঁধা দান কারি আবুল কালামদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এক গ্রুপে অপর গ্রুপের উপর দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে অর্তকিত ভাবে হামলা চালিয়ে উভয় পক্ষের টিটু (২২), আবুল কালাম (২৫), দ্বীনমোহাম্মদ (৩০), মোঃ হোসেন (২৬), ইসমাইল হোসেন (৩২), বেল্লাল হোসেন (২৮), জাফর (৩০), নাজির (৫৫), সাকিল (২০), আলমগীর হোসেন (৩০), মানিক (৬০), শামিম (২২), বাবলু (২৩), রুমি (৩০) ও জুনি বেগম (৪০) আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয়রা সোনাইমুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও আহত মানিককে উন্নত চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
সোনাইমুড়ী থানার ওসি আব্দুস সামাদ জানান, রাতেই সংঘর্ষের সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনার স্থলে পাঠিয়েছি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রয়েছে।