• আজঃ বুধবার, ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

হ্নীলাবাসীর বহুদিনের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করবে চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী

ওসমান আল হুমাম, কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধিঃ


এবার হ্নীলাবাসীর বহুদিনের স্বপ্ন পূরণ হবে টেকসই, কার্যকরী, মজবুত ড্রেনেজ ব্যবস্থা নির্মাণের মধ্যদিয়ে। সামান্য বৃষ্টিতেই হ্নীলার ইউনিয়নের বিভিন্ন রাস্তায় জলবদ্ধতায় উপচে পড়ে। এতেই হ্নীলাবাসীর ভোগান্তির অন্ত নেই।

আজ শনিবার(৪ঠা জুলাই ২০২০) সকাল (১০থেকে বিকেল ৫টা) পর্যন্ত হ্নীলা ষ্টেশনসহ হ্নীলার ইউনিয়নের আটটি স্পট পরিদর্শন করে অতিদ্রুত ড্রেনেজ ব্যবস্থা নির্মান করার আশ্বাস দিয়েছেন। কক্সবাজার টেকনাফ উপজেলার ২নং হ্নীলার ইউনিয়নের একমাত্র কনিষ্ঠ চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী।

ভোক্তভুগীদের মতে, অতীতের জন প্রতিনিধিরা বারবার ড্রেনেজ ব্যবস্থার আশ্বাস দিয়ে থাকলেও প্রতিশ্রুতি পালনে ব্যার্থ হয়েছেন। দীর্ঘদিন ধরে হ্নীলা ষ্টেশনের পুরাতন বাজারসহ হ্নীলা ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার ড্রেনেজ ব্যবস্থার সংস্কার কাজ হচ্ছে না। আবার কোনো কোনো এলাকায় পর্যাপ্ত ড্রেনেজ ব্যবস্থাও নেই।

যে কারণে সামান্য বৃষ্টি হলেই হ্নীলার ফুলের ডেইল, লেচুয়া প্রাং, মুইন্নার জুমসহ পাহাড় বিধৌত রাস্তাগুলোতে সর্বত্রই পানি ও কাদা মাটির ভাগাড়ে পরিণত হয়। বলতে গেলে হ্নীলা ইউনিয়নের প্রায় রাস্তাতে ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকাতেই রাস্তার দু‘পাশে বৃষ্টির পানি জমে থাকে দিনের পর দিন। আধহাঁটুপানিতেই চলাচল করতে হয় ওইসব এলাকার মানুষকে।

হ্নীলা পুরাতন বাজাররের রাস্তা ড্রেনেজ ব্যবস্থা সবচেয়ে অপ্রতুল। হালকা বৃষ্টি হলেই ড্রেন ভরে রাস্তায় জমে যায় পানি। দুর্গন্ধযুক্ত ও পচা পানিতেই চলতে হয়ে পুরান বাজার বাসীকে। একই অবস্থা হ্নীলার অন্যান্য এলাকারও।

হ্নীলার ইউনিয়নের সর্ব কনিষ্ঠ চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী গণমাধ্যমকে বলেন, নিয়ম অনুযায়ী বর্ষা মৌসুম শেষ হলে ড্রেনেজ ব্যবস্থা ক্লিনসহ উন্নয়ন কাজ করা হয়ে থাকে। কিন্তু অতীতের জনপ্রতিনিধিরা সিকিভাগ কাজ করলেও আজ আমাদেরকে এ কষ্টে পড়তে হতো না।

অতীতের জনপ্রতিধিরা বৃষ্টি নামলে বাড়ি থেকে বের হতো না। কিন্তু আমার প্রতিদিন গণমানুষের খোঁজ খবর নিতে হ্নীলা ষ্টেশনসহ পল্লীগায়ে যেতে হয়। আমাকে এসব রাস্তা দিয়েই হাটতে হয়।  স্পষ্ট পরিদর্শনে গিয়ে এলাকার মুরব্বিদের সাথে মিশে যান তিনি।

তাদেরকে বলেন, আমার বহুদিনের স্বপ্ন ছিল হ্নীলা ষ্টেশনের পুরাতন বাজারের রাস্তার দু’পাশে উন্নত টেকসই ড্রেনেজ ব্যবস্থাসহ পাহাড় বেষ্টিত রাস্তাগুলোর ড্রেনেজ ব্যবস্থা নির্মাণ, মেরামত করার। মহান আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করি আপনারা আমাকে জনপ্রতিনিধি বানিয়েছেন। আমি আপনাদের কষ্টগুলো সরেজমিনে দেখে যাচ্ছি। নিয়ত করেছি এবর্ষাকালেই রাস্তার জলবদ্ধতার দূরিকরণের ইচ্ছা করেছি।

কাজগুলো অতি শীঘ্রই শুরু হবে ইনশাআল্লাহ বর্ষার শেষ হওয়ার আগেই সেরে উঠতে পারব বলে আশা রাখি। সকলের নিকট দু‘আ কামনা করছি।