• আজঃ বৃহস্পতিবার, ৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২২শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

মানবিকতার কাছে করোনার পরাজয়-মেয়র ফেরদৌস

মোঃ বেলায়েত হোসেন
নাটোর জেলা -নগর ২৪ নিউজঃ


সারা বিশ্ব যখন বৈশ্বিক করোনা ভাইরাসের ভয়ে জীর্ণশীর্ণ ঠিক সেই সময় মানবিকতার অনুন্যা উদাহরণ সিংড়া পৌরসভার সুযোগ্য মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌস। পৃথিবীর বুকে করোনাভাইরাস ভয়াবহ ছাপ রেখে যাবে এটি এখন দৃশ্যমান। করোনা আতঙ্কে কর্মহীন আর অসহায় ফেরদৌস ।

সারা বিশ্ব যখন বৈশ্বিক করোনা এখন দৃশ্যমান। করোনা আতঙ্কে কর্মহীন আর অসহায়দের মাঝে চলছে হাহাকার। কে কখন এই কোভিড-১৯ ভাইরাসের শিকার হবে জানেন না কেউ। দেশে সকল জেলার আনাছে কানাছে সব খানে পৌছে গেছে করোনা ভাইরাস। তেমনি করে হুহু করে বাড়ছে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাও।

আক্রান্ত হচ্ছে সকল শ্রেণী পেশার মানুষ। এই ক্রান্তিকালে যখন বেশির ভাগ জনপ্রতিনিধিরা নিশ্চুপ ভূমিকা পালন করছেন সেই সময় কেউ কেউ নিজের জীবন বিপন্ন করে মানুষের জীবন বাঁচাতে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা দিয়ে সিংড়া পৌর এলাকার জনগণের পাশে সর্বদা দেখা গেছে করোনা যোদ্ধা মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌস কে।

জনগনকে করোনার ভয়াবহতা থেকে বাচাতে এই চার মাসে তিনি নিয়েছেন একের পর এক নতুন নতুন উদ্যোগ। কখনো জনগনের দৌড়গড়ায় নিজেই ছুটেছেন সরকারি ও ব্যক্তিগত ত্রাণ নিয়ে, সিংড়া পৌরবাসীকে নিজ ঘরে রাখতে যেকোনো পণ্যের প্রয়োজনে চালু করেছেন হটলাইন নাম্বার, ফোন করলেই মেয়র নিজেই অথবা স্বেচ্ছাসেবীরা বাজার নিয়ে পৌঁচ্ছে যায় পৌরবাসীর দোরগোড়ায়, বিদেশ ফেরত বা বেশি শংক্রমিত এলাকা থেকে কেউ এলে হোম কোয়ারিন্টাইনে থাকার জন্য হাত জোর করে মিনতি করতে দেখা গেছে।

এখানেই থেমে থাকেননি, পরিবেশবান্ধব ই-রিকশা “চলো” পরিবহনের মাধ্যমে পৌরবাসীর জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পাশাপাশি চালু করেছেন জরুরী অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস করেছেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক সহ সেবাদানকারিদের প্রতিদিন আনা নেওয়ার জন্য পৌরসভা থেকে ব্যবস্থা করেছেন চলো পরিবহন।

পৌর বাসীকে জনসমাগম এড়াতে এবং সামাজিক নিরাপদ দূরত্বের বিষয়ে জনসচেতনতা তৈরি করতে করেছেন মাইকিং, বিতরণ করেছেন মাক্স, সাবান এমকি পৌরসভার ১২ টি ওয়ার্ডে প্রতিটি রাস্তায় নিয়োমিত নিজ হাতে ছিটিয়ে চলেছেন জিবানুনাশক স্প্রে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকদের জন্য ব্যবস্থা করে দিয়েছেন পিপি,মাক্স, হ্যান্ড সেনিটাইজার, ফেস শিল্ড ও অক্সিজেন।

কেউ অসুস্থ্য হয়ে পরলে নিজেই তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করার জন্য পৌছেদিয়েছেন হাসপাতালে। পৌরসভার আওতায় বাসস্ট্যান্ডে নির্মিত দোকানগুলোর করোনা কালিন সময়ে ভাড়া মওকুফ করেছেন। এমন কি করোনা ১০ দিন যাবৎ জ্বর স্বর্দি ও শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যা নিয়ে সিংড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হওয়া রূগীর সার্বিক চিকিৎসার খোজ খবর নিতে এবং উন্নত চিকিৎসার জন্য বগুড়া টি এম এস এস মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর জন্য রূগীকে এ্যাম্বুলেন্সে উঠিয়ে দিতে দেখা গেছে।

এছাড়াও করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি ডেঙ্গু রোগের বাহক এডিস মশা নিধন অভিযান শুরু করেছে সিংড়া পৌরসভা।করোনা যোদ্ধা মানবিক মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌসের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি নগর টুয়েন্টি ফোর কে বলেন, স্থানীয় সাংসদ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ভাইয়ের নির্দেশনায় বৈশ্বিক মোহামারী করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় আমরা প্রতিনিয়ত সিংড়া বাসীর জন্য নিজেকে নিয়োজিত রেখেছি। আমি পৌরবাসীর সেবক মাত্র।

তিনি বলেন, করোনা কালিন পরিস্থিতি সিংড়া পৌর এলাকার প্রায় ২০ হাজার পরিবারের কাছে ত্রান পৌছে দিয়েছি, সিংড়া পৌরবাসীকে নিজ ঘরে রাখতে যেকোনো পণ্যের প্রয়োজনে চালু করেছি হট-লাইন নাম্বার, ফোন করলেই বাজার পৌঁচ্ছে যায় পৌরবাসীর দোড়গোড়ায়, বিদেশ ফেরত বা বেশি সংক্রমিত এলাকা থেকে কেউ এলে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার জন্য অনুরোধ করছি ।

করোনা সংক্রমিত ব্যক্তির বাড়ি লক ডাউন করার পাশাপাশি পরিবারের খাবারে ব্যবস্থা করে দিচ্ছি এবং নিয়োমিত খোজ খবর রাখছি, পৌর বাসীর জন্য পরিবেশ বান্ধব ই-রিকশা “চলো” পরিবহনের মাধ্যমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পাশাপাশি চালু করেছেন জরুরী অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক সহ সেবাদানকারিদের প্রতিদিন আনা নেওয়ার জন্য পৌরসভা থেকে ব্যবস্থা করেছি চলো পরিবহন।

পৌর বাসীকে জনসমাগম এড়াতে এবং সামাজিক নিরাপদ দূরত্বের বিষয়ে জনসচেতনতা তৈরি করতে মসজিদ থেকে এবং রিকসা নিয়ে মাইকিং করছি, বিতরণ বিতরণ করছি মাক্স, সাবান, পৌরসভার ১২ টি ওয়ার্ডে প্রতিটি রাস্তায় নিয়োমিত জিবানুনাশক স্প্রে করছি, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকদের জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছে পিপি,মাক্স, হ্যান্ড সেনিটাইজার, ফেস শিল্ড ও অক্সিজেন।

এছাড়াও করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি ডেঙ্গু রোগের বাহক এডিস মশা নিধন অভিযান শুরু করেছি। সিংড়া পৌরসভার আওতায় বাসস্ট্যান্ডে নির্মিত দোকানগুলোর করোনাকালিন সময়ে ভাড়া মওকুফ করেছে। পৌর এলাকার দোকান গুলোর সামনে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করেছি। সিংড়াবাসীর যে কোন বিপদে আমরা সর্বদা নিজেকে নিয়োজিত রেখেছি। যেকোন বিপদে আমাদের কে সিংড়াবাসী পাশে পাবেন ইনশা আল্লাহ।

পৌর মেয়রের তত্ত্বাবধানে শতাধিক আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মী স্বেচ্ছায় প্যাকেট তৈরি থেকে শুরু করে কর্মহীন মানুষের ঘরে ঘরে খাবার নিয়োমিত পৌঁছে দিচ্ছেন। সিংড়া পৌরসভার ১২টি ওয়ার্ড ঘুরে সাধারণ মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায়, এক সময়ের অবহেলিত চলনবিল সিংড়া পৌরবাসী এমন মানবিক মেয়র পেয়ে নিজেদেরকে ধন্য মনে করছেন। কেউ কেউ স্থানীয় সাংসদ এবং মেয়রের জন্য রোজা রাখছেন ও নামাজ পড়ে আল্লাহ্ র কাছে দোয়া করছেন।

সিংড়া পৌর মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌসের সার্বিক কার্যক্রমের কাছে বৈশ্বিক মহামারী করোনার হয়েছে পরাজয় । হয়েছে মানবিকতার জয়। এমন মেয়র দেশের প্রতিটি পৌরবাসীর প্রত্যাশা।
মানবিক মেয়র মানবতার সেবার উজ্জ্বল নক্ষত্র।