• আজঃ মঙ্গলবার, ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৭শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

প্রবাসী কর্মীদের জন্য চালু হচ্ছে বাধ্যতামূলক বীমা , কি কি সুবিধা পাবেন প্রবাসীরা?

প্রবাসী কর্মীদের জন্য চালু হচ্ছে বাধ্যতামূলক বীমা । বীমা সুবিধা চালুর লক্ষ্যে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের সঙ্গে জীবন বীমা করপোরেশনের এক চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। ১৯ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবসে বিমা পলিসি হস্তান্তরের মধ্যে দিয়ে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গত বুধবার (১১ ডিসেম্বর) বিকালে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে জীবন বীমা কর্পোরেশনের সঙ্গে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে এসব কথা জানান। এর ফলে আগামী জানুয়ারি থেকে বীমা ছাড়া বিদেশে যেতে পারবে না কর্মীরা।

কি কি সুবিধা পাবেন প্রবাসী কর্মীরা?

-বীমা নীতি অনুযায়ী, বীমার মেয়াদকালে স্বাভাবিক মৃত্যু হলে অথবা দুর্ঘটনাজনিত কারণে বীমার মেয়াদকালে অথবা মেয়াদোত্তীর্ণের পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে মৃত্যু হলে বীমা গ্রহীতা শতভাগ সুবিধা পাবেন। আবার দুর্ঘটনার মাধ্যমে অঙ্গহানি হলেও শতভাগ বীমা সুবিধা পাওয়া যাবে। তবে আত্মহত্যা, এইচআইভি বা এইডসের কারণে মৃত্যু, মাদকাসক্তি, যুদ্ধ বা গুরুতর আইন লঙ্ঘনের কারণে মৃত্যুদণ্ড হলে এই টাকা দেওয়া হবে না।

প্রবাসী কর্মীরা কীভাবে বীমার আওতাভুক্ত হবেন?

বিদেশে যাওয়ার জন্য যখন একজন কর্মীর কাগজপত্র বিএমইটির কাছে জমা দেওয়া হয়, তখন কল্যাণ ফিও জমা দেওয়া হয়। সেখানে সাড়ে ৩ হাজার টাকার জায়গায় এখন থেকে প্ল্যান অনুযায়ী আরও ৪৯০ টাকা অথবা এক হাজার ৯৭৫ টাকার ব্যাংক ড্রাফট জমা দিতে হবে। সেখান থেকে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টের প্রিন্ট কপি সংরক্ষণ করবে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড।

কিভাবে হবে বীমা পলিসি?

পলিসি হবে দুই ধরনের—দুই লাখ ও পাঁচ লাখ টাকার। পলিসির মেয়াদ দুই বছর। তবে বিদেশে অবস্থানকালে নিজ অর্থায়নে আরও দুই বছরের জন্য পলিসি নবায়ন করার সুযোগ থাকছে।

নীতিমালায় বলা হয়েছে, ২ লাখ টাকার পলিসির ক্ষেত্রে প্রিমিয়াম ৯৯০ টাকা। আর ৫ লাখ টাকার পলিসির ক্ষেত্রে প্রিমিয়াম ২ হাজার ৪৭৫ টাকা। উভয় পলিসির ক্ষেত্রেই সরকার দেবে ৫০০ টাকা। ৯৯০ টাকা প্রিমিয়ামের মধ্যে বিমাগ্রহীতাকে দিতে হবে ৪৯০ টাকা। আর অন্যটিতে বীমা গ্রহীতাকে দিতে হবে ১ হাজার ৯৭৫ টাকা।