• আজঃ বৃহস্পতিবার, ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা অক্টোবর, ২০২০ ইং

নিন্দুকদের নিন্দা চলবে আমাদের কাজও চলবেঃফজলুল হালিম

সারা দুনিয়ায় মৃত্যুর মিছিল যখন আরো দীর্ঘ হচ্ছে আমরা তখন কে কি করছি না করছি সেই বিতর্কে ব্যস্ত আছি।

কে ত্রাণ দিছে কে দেয় নাই, কে ত্রাণ দেয়ার ছবি দিয়ে সব শেষ করে ফেলছে কে ছবি না দিয়ে বিশাল বুজুর্গ বনে গেছে এইসব ফাতরামিই চলছে।

আগে বহুবার বলেছি, মানবকুলের মধ্যে পলি মাটিতে বেড়ে ওঠা আমাদের চরিত্র বরাবরই পরশ্রীকাতর। পূর্বপুরুষদের কাছ থেকে লিগ্যাসি হিসাবে এটা আমরা পেয়েছি। মানুষের সমালোচনা করাই যেন আমাদের ব্রত।

আমরা একে অন্যকে ছোট করে, হেয় করে, অপমান করে কিংবা আক্রমণ করে এক ধরনের বিকৃত সুখ পাই।

অকারণে মানুষকে অপমান করতে আমাদের ভাল লাগে। বিকৃত এ সুখবিত্তির আদিপেশা কমবেশী আমাদের সবার মাঝেই আছে।

যে তরুণ, আমলারা অযোগ্য বলে গলাবাজি করতেছে সে কিন্তু যোগ্যতার অভাবে সিভিল সার্ভিসে কোথাও যায়গা পায়নি।

যে ছেলে, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষককে বিদেশী নাম করা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকের মত হতে বলে; সে নিজে কিন্তু বিদেশী ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হবার যোগ্য না।

যে যুবক, ডাক্তাররা মানবিক কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছে; সে তার বৃদ্ধ বাবা-মাকে ওল্ড হোমে রেখে আসছে বহুকাল আগে।

মূলত এই ফটকাবাজরাই এখন এসব ত্যানা প্যাঁচাচ্ছে।

তবে, সত্যিকারের খাঁটি মানুষ যিনি তিনি কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। আমি মনে করি তার এ কাজ প্রকাশ্যে হলেও সমস্যা নেই, গোপনে হলেও অসুবিধা নেই। এটা নিতান্তই তার পছন্দের বিষয়। ব্যক্তিগত বিষয়।

যাইহোক, নিন্দুকদের নিন্দা চলবে। আমাদের কাজও চলবে।

সোনার মানুষ যারা, সৎ মানুষ যারা তারা নিন্দা কিংবা সমালোচনা উপেক্ষা করে তাদের কাজ চালিয়ে যাবেন। যেমনটা শেখ সাদী বলেছেন, যে সৎ হয় নিন্দা তার কোন অনিষ্ট করতে পারে না।

ব্যক্তিজীবনে আমি বুদ্ধের অমৃতবাণীতে বিশ্বাসী। তিনি বলেছেন, প্রাজ্ঞ ব্যক্তি কখনো নিন্দা বা প্রশংসায় প্রভাবিত হয় না।

সৎ কাজ চলবে।

লেখকঃ
ফজলুল হালিম রানা, সহযোগী অধ্যাপক
চেয়ারম্যান, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়