• আজঃ রবিবার, ১৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা নভেম্বর, ২০২০ ইং

ঝামেলায় পড়তে হচ্ছে মালেশিয়া প্রবাসীদের

প্রবাস ডেস্কঃ


করোনা ভাইরাসের বিশ্তার রোধে বা এই ভাইরাসের কারনে দিশেহারা হয়ে পড়েছে কিছু প্রবাসীরা। কিন্ত সকল ধরনের নিয়ম মেনে খোলা হচ্ছিলো দোকান। তবে দোকান পাট খোলা হলেও এক বিশেষ অভিযানে বিদেশী শ্রমিকদের দ্বারা পরিচালিত ছয়টি ব্যবসায়ীক দোকান সিল করেছে মালয়েশিয়ায় কাজাং পৌর কাউন্সিল (এমপিকেজে)।

ছয়টি বিভিন্ন ধরণের দোকানের মধ্যে ব্যবসায়ীদের মুদি এবং নাপিতের দোকান রয়েছে। কাউন্সিলটি ১৫০ ব্যবসায়িক প্রাঙ্গণ বা দোকান চিহ্নিত করেছে যা বিদেশী শ্রমিকদের দ্বারা পরিচালিত বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

এমপিকেজে প্রয়োগকারী পরিচালক ‘শরিমান মোহদ নর’ বলেন, অফিসাররা এসব দোকানে তদন্ত চালিয়েছে এবং দেখা গেছে যে বেশিরভাগ ব্যবসায়ী বৈধ লাইসেন্স ব্যতীত দোকান পরিচালনা করছে।

যেহেতু মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার (এমসিও) কার্যকর হয়েছে, আমরা ৯৮ টি বিভিন্ন অপরাধমূলক দোকান সিলগালা করে দিয়েছি।এর মধ্যে ৮০% এর বেশি বিদেশী কর্মীরা বিনা অনুমতি ও দলিল ছাড়াই ব্যবসা চালাচ্ছে” গতকাল ‘হুলু ল্যাঙ্গাত’এ অভিযানের সময় তিনি বলেছিলেন।

শরিমান আরও যোগ করেছেন যে, এই অভিযান চলবে এবং স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে অবৈধ ব্যবসা চিহ্নিত করতে, বিশেষ করে যে ব্যবসাগুলো বিদেশীদের দ্বারা পরিচালিত। আমরা ইমিগ্রেশন বিভাগের মতো অন্যান্য সংস্থাগুলিকেও সহযোগিতা করবো যেন অবৈধভাবে যারা কাজ করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে।

বেশিরভাগ সময় আমরা দেখতে পাই যে ওদের কাছে যথাযথ দলিল সহ দেশে থাকলেও তাদের বৈধ কাজের অনুমতি নেই। উদাহরণস্বরূপ, তাদের অনুমতি দেওয়া হয়েছে কৃষিক্ষেত্রে কাজ করার কিন্তু তারা বিভিন্ন দোকান বা খাবারের স্টলে কাজ করছে” শরিমান ব্যাখ্যা করেছিলেন এমন ভাবে।

তিনি আরও যোগ করেছেন, আপাতত এমপিকেজে খুচরা ব্যবসায়ের বিরুদ্ধে আইন প্রয়োগের বিষয়ে মনোনিবেশ করবে এবং তারপরে খাদ্য, আসবাব ও শিল্প প্রাঙ্গন প্রতিষ্ঠান গুলোতে অভিযান চালাবে। অপারেশন চলাকালীন, কামপুং মেলাকার নিকটে জালান হুলু ল্যাঙ্গাট বরাবর ছয়টি দোকান বিদেশী দ্বারা পরিচালিত এবং বৈধ ব্যবসায়ের লাইসেন্সবিহীন অবস্থায় পাওয়া গেছে।