• আজঃ বৃহস্পতিবার, ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৯শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

ধোনি যেন মাঠ থেকে অবসর নেয়ঃ শোয়েব

গত শনিবার সন্ধ্যায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে হঠাৎ করেই অবসর নেন ভারতের সাবেক সফল অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। তবে আগামী বছর ভারতের মাটিতে টি-২০ বিশ্বকাপের জন্য ধোনিকে আবারো জাতীয় দলে ফেরাতে পারেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, এমনটাই মনে করেন পাকিস্তানের স্পিড স্টার শোয়েব আখতার।

নিজের ইউটিউব চ্যানেলে শোয়েব বলেন, ‘আগামী বছরে ভারতের মাটিতে টি-২০ বিশ্বকাপে খেলার জন্য ধোনিকে অনুরোধ জানাতে পারেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধ ফেরাতে পারবেন না ধোনি।

২০১৯ সালের জুলাইয়ের পর ভারতের হয়ে আর খেলেননি ধোনি। সেটি ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল ছিলো। ধোনির অবসরের পর অনেকেই বলেছেন, আইপিএলের ত্রয়োদশ আসরে নিজেকে প্রমান করে এ বছর টি-২০ বিশ্বকাপ খেলেই জাতীয় দল থেকে অবসর নিতে চেয়েছিলেন তিনি।

কিন্তু এ বছর করোনার কারণে আইপিএল পিছিয়েছে ছয় মাস। আর অস্ট্রেলিয়ার হবার কথা, টি-২০ বিশ্বকাপটি পিছিয়েছে দু’বছর। তারপরও পুরনো সূচি অনুযায়ী আগামী বছর অক্টোবরে ভারতের মাটিতে হবে টি-২০ বিশ্বকাপ।

তাই ঐ বিশ্বকাপ হতে এখনো ১৪ মাস বাকী থাকায় দেরি না করে ভারতের স্বাধীনতা দিবসের দিনই অবসরের ঘোষণা দেন ধোনি। নিজের অবসর নিয়ে জল্পনাটা দীর্ঘায়িত করতে চাননি ভারতের হয়ে দু’টি বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক।

ধোনিকে আবারো মাঠে দেখা যেতে পারে, বলে মনে করেন রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস। তিনি বলেন, ‘আগামী টি-২০ বিশ্বকাপে খেলার জন্য ধোনিকে অনুরোধ করতেই পারেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি। এমন সম্ভাবনাও রয়েছে বলে আমি মনে করি।

ক্রিকেট থেকে ১৯৮৭ সালে অবসর নিয়েছিলেন পাকিস্তানের ইমরান খান। কিন্তু পরবর্তীতেও ক্রিকেট খেলে যাবার জন্য ইমরানকে অনুরোধ করেছিলেন পাকিস্তানের জেনারেল জিয়া উল হক। ইমরান তার কথা রেখেছিলেন এবং খেলেছিলেন।

পরে ১৯৯২ সালের অবসরে যান ইমরান। তাই মোদির অনুরোধে ধোনি আবার ক্রিকেটে ফিরতে পারেন। আর মোদির অনুরোধ ফেরানো সম্ভব হবে না ধোনির। সেক্ষেত্রে আবারো ধোনিকে মাঠে দেখা যেতে পারে।

অধিনায়ক হিসেবে দু’টি বিশ্বকাপ জয়, আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয় করেছেন ধোনি। এছাড়াও খেলোয়াড় হিসেবে ম্যাচ শেষ করার অনেক কীর্তিও আছে ধোনির। কিন্তু বিশ্ব ক্রিকেটের এমন ক্রিকেটারের এমন অবসর অনেকেই মেনে নিতে পারছেন না।

ধোনির এমন অবসর নিয়ে সম্প্রতি শোয়েবের সাবেক অধিনায়ক ইনজামাম উল হকও মন্তব্য করেছেন। ইনজামাম বলেছিলেন, ‘বিশ্বজুড়ে ধোনির কোটি-কোটি ভক্ত আছে। ধোনির ভক্তরা, তাকে আবারো মাঠে দেখতে মুখিয়ে ছিলো।

কিন্তু সে অবসরের সিদ্বান্ত নিলো। সেটিও আবার ঘরে বসে। আমার মতে, এই মাপের একজন ক্রিকেটারের ঘরে বসে অবসর নেওয়া মানায় না। মাঠ থেকে অবসর নেওয়া উচিত ছিল তার।

শোয়েবও চান, ধোনি যেন মাঠ থেকে অবসর নেয়। তিনি বলেন, ‘ধোনিকে বিদায়ী ম্যাচ দিতে তৈরি ভারত। ধোনি যদি নিজে না চায়, সেটা আলাদা ব্যাপার।

আমি চাইবো, ধোনি যদি দু’টো টি-২০ ম্যাচ খেলে বিদায় নিতে চায়, তাহলে স্টেডিয়াম পরিপূর্ণ থাকবে। এভাবেই তার অবসর নেয়াটা উচিত হবে।