• আজঃ বুধবার, ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং

ঝিনাইদহে বহু বিয়ে করে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রোকসানার বিরুদ্ধে

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ডাকবাংলা গ্রামের রোকসানা নামের এক সুন্দরী নারী একাধিক বিয়ে করে বিয়ের কিছুদিনের মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটিয়ে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ায় বেশ আলোচিত হয়ে উঠেছে এলাকার মানুষের কাছে।

রোকসানা খাতুন তার ব্যক্তিগত জীবনে একাধিক বার বিয়ের পীরিতে বসে, তবে বিয়ে হওয়ার বেশ কিছুদিন পরেই নতুন দাম্পত্য জীবনের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটিয়ে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার কারনে এই রোকসানা এলাকার সামাজিক মহলের কাছে বেশ আলোচিত মুখ।

সম্প্রতি এই রোকসানা বিয়ে কে টাকা আয়ের এক মাধ্যম হিসাবে বেচে নিয়েছে, কিন্ত সে তার চিন্তা অনুযায়ী টাকা পেলেও হইতো ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সেই সমস্ত পরিবার গুলা যারা রোকসানার মায়া জালে আটকে যাচ্ছে।

রোকসানার ব্যক্তিগত জীবনে ইতোমধ্যে ৩ বার বিবাহ হয় কিন্ত বিয়ের পর পর ঘটে বিবাহ বিচ্ছেদ আর বিবাহ বিচ্ছেদ মানে রোকসানার কাছে অর্থ আর গহনা, সম্প্রতি সাগান্না ইউনিয়নের বাবু নামে একজনকে শিকার করেন রোকসানা খাতুন, কিন্ত ঘটনার পিছনে পরে আছে আরও বড় ঘটনা

এই রোকসানার জীবনে, এর আগেও ২০০৯ সালে ২৫ই সেপ্টেম্বরে গোপনে দেখা করার কথা বলে ফাসিয়ে বিয়ে করে মেহেদী হাসান বাবুকে কিন্ত বিয়ের কিছুদিন পর ৩ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা নিয়ে ডিভোর্স দেয় সাগান্না ইউনিয়নের মেহেদী হাসান বাবুকে।

এর আগে ২০০৭ সালে সদর উপজেলার চন্ডিপুর গ্রামের আব্বাস আলীর ছেলে ফারুক হোসেন এবং ২০০৫ সালে উপজেলার বৈডাঙ্গা গ্রামের আব্দুল মতিনের ছেলে আব্দুল লতিফকে বিয়ে করে কিছুদিন পর তাদেরকে ডিভোর্স দেয় এবং সেখান থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়।

বহুবিবাহ করা রোকসানা কখনোই ভাল চরিত্রের ছিল না, তার টার্গেট থাকে সহজ সরল ভদ্র টাকাওয়ালা লোক বুঝে একাধিক বিয়ে করে টাকা উপার্জনের নেশায় মেতে উঠেছে সুন্দরী নারী রোকসানা খাতুন।

রোকসানা’র প্রতারণা তথ্য জানতে আমাদের সাথে থাকুন…